Latest Notes

The Place of Art in Education – Nandalal Bose Bengali Meaning |Class 11 আয় আরো বেঁধে বেঁধে থাকি (কবিতা) SAQ | আয় আরও বেঁধে বেঁধে থাকি কবিতার অতিসংক্ষিপ্তধর্মী প্রশ্নোত্তর নদীর বিদ্রোহ MCQ | নদীর বিদ্রোহ বহুবিকল্পধর্মী প্রশ্নোত্তর | দশম শ্রেণী দেবতামুড়া ও ডম্বুর (গল্প)- সমরেন্দ্র চন্দ্র দেববর্মা বেড়া (ছোটোগল্প) – মানিক বন্দ্যোপাধ্যায় সিংহের দেশ(গল্প) – বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায় সুভা (ছোটোগল্প) – রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর নতুনদা (গল্প) – শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় দস্যু-কবলে (গল্প) – বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় সামান্যই প্রার্থনা (কবিতা) – বিজনকৃষ্ণ চৌধুরী

About the Author and the Story:

Khushwant Singh (1915-2014) has won fame as a journalist as well as a fiction writer. With Malice towards One and All was a very popular weekly newspaper column penned by him. He was editor of the prominent newsweekly known as The Illustrated Weekly. Khushwant Singh is also well known for his poems and short stories.

খুশবন্ত সিং (1915-2014) একজন সাংবাদিকের পাশাপাশি একজন কথাসাহিত্যিক হিসেবেও খ্যাতি অর্জন করেছেন। With Malice towards One and All  একটি খুব জনপ্রিয় সাপ্তাহিক সংবাদপত্রের কলাম যা তাঁর লেখা। তিনি The Illustrated Weekly নামে পরিচিত বিখ্যাত সংবাদ সাপ্তাহিক পত্রিকার সম্পাদক ছিলেন। খুশবন্ত সিং তাঁর কবিতা এবং ছোট গল্পের জন্যও সুপরিচিত।

‘Karma’ is taken from The Collected Short Stories of Khushwant Singh (2005). The story is written with a note of irony. The author shows concern with the issue of cultural identity.

‘কর্ম’ The Collected Short Stories of Khushwant Singh (2005) থেকে নেওয়া হয়েছে। গল্পটি বিদ্রুপের সুরে লেখা। লেখক সাংস্কৃতিক পরিচয়ের বিষয়টি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।

Karma – Khuswant Singh Bengali Meaning | Class 11

Sir Mohan Lal looked at himself in the mirror of a first waiting room at the railway station. The
mirror was obviously made in India. The red oxide at its back had come off at several places and long lines of translucent glass cut across its surface. Sir Mohan smiled at the mirror with an air of pity and patronage.

স্যার মোহন লাল রেলস্টেশনের প্রথম শ্রেণীর ওয়েটিং রুমের আয়নায় নিজেকে দেখছিলেন। আয়নাটি স্পষ্টতই ভারতে তৈরি হয়েছিল। এর পিছনের লাল অক্সাইডটি বেশ কয়েকটি জায়গায় নেমে এসেছিল এবং এর পৃষ্ঠ জুড়ে স্বচ্ছ কাচের দীর্ঘ লাইন কেটে গেছে। স্যার মোহন করুণা ও পৃষ্ঠপোষকতার বাতাসে আয়নার দিকে হাসলেন।

“You are so very much like everything else in this country, inefficient, dirty, indifferent,” he murmured…

তিনি বিড়বিড় করে বললেন, “তুমিও এদেশের সব কিছুর মতো, অদক্ষ, নোংরা, উদাসীন”।

The mirror smiled back at Sir Mohan.

আয়না স্যার মোহনের দিকে ফিরে হাসল।

“You are a bit of all right, old chap,” it said.

“তুমি কিছুটা ঠিক আছ, পুরানো মানুষ,” এটি বলল।

“Distinguished, efficient – even handsome. That
neatly-trimmed moustache,  the suit from Savile Row with the carnation in the buttonhole – the aroma of eau de cologne, talcum powder and scented soap all about you ! Yes, old fellow, you are a bit of all right.”

“বিশিষ্ট, দক্ষ – এমনকি সুদর্শন। সেই ঝরঝরে-ছাঁটা গোঁফ, স্যাভিল রো থেকে বানানো স্যুট, কোটের বোতাম ঘরে গোলাপি রঙ,সুগন্ধি ইও ডি কোলন, ট্যালকম পাউডার এবং সুগন্ধযুক্ত সাবান সব তুমিই! হ্যাঁ, বুড়ো লোক, তুমি একটু ঠিক আছো।”

Sir Mohan threw out his chest, smoothed his Balliol  for the umpteenth time and waved a goodbye to the mirror.

স্যার মোহন তার বুক থেকে ব্যালিওল টাইটি অগণিত বারের জন্য মসৃণ করলেন এবং আয়নাকে বিদায় জানালেন।

He glanced at his watch. There was still time for a quick one.

তিনি ঘড়ির দিকে তাকালেন। তখনও সময় ছিল দ্রুত আর একটি বারের জন্য।

“Koi Hai !”

“কোই হ্যায়!”(কেউ আছে?)

A bearer in white livery appeared through a wire gauze door.

সুক্ষ্ম তারের দরজা দিয়ে সাদা উর্দি পরা একজন বেয়ারা  হাজির হল।

“Ek Chota,” ordered Sir Mohan, and sank into a large cane chair to drink and ruminate. Outside the waiting room, Sir Mohan Lal’s luggage lay piled along the wall. On a small grey steel trunk, Lachmi, Lady Mohan Lal, sat chewing a betel leaf and fanning herself with a newspaper.

“একটা ছোট,” স্যার মোহন আদেশ করলেন, এবং একটি বড় বেতের চেয়ারে মদ্যপান এবং গুঞ্জন করতে করতে বসে পড়লেন। ওয়েটিং রুমের বাইরে স্যার মোহন লালের মালপত্র দেয়াল ঘেঁষে পড়ে আছে। একটি ছোট ধূসর স্টীলের ট্রাঙ্কে লছমী, লেডি মোহন লাল(মোহনলালের স্ত্রী) পান চিবোচ্ছিলেন এবং একটি খবরের কাগজ দিয়ে নিজেকে বাতাস করছিলেন।

She was short and fat and in her middle forties. She wore dirty white sari with a red border. On one side of her nose glistened a diamond nose-ring, and she had several gold bangles on her arms. She had been talking to the bearer until Sir Mohan had summoned him inside. As soon as he had gone, she hailed a passing railway coolie.

তিনি ছিলেন বেঁটে এবং মোটা এবং চল্লিশের মাঝামাঝি তার বয়স। তিনি একটি লাল পাড় দেওয়া একটি ময়লা সাদা শাড়ি পরেছিলেন। তার নাকের একপাশে একটি হীরার নাকছাবি ঝলমল করছিল, এবং তার হাতে বেশ কয়েকটি সোনার চুড়ি ছিল। যতক্ষণ না স্যার মোহন তাকে ভিতরে ডেকে পাঠালেন, ততক্ষণ তিনি বেয়ারাটির সাথে কথা বলছিলেন। সে চলে যাওয়ার সাথে সাথে তিনি পাশ দিয়ে যাওয়া রেলওয়য়ে এক কুলিকে ডাকলেন।

“Where does the zenana stop?”

“জেনানা(মহিলা কামরা) কোথায় থামবে?”

“Right at the end of the platform.”

“ঠিক প্ল্যাটফর্মের শেষে।”

The coolie flattened his turban to make a cushion, hoisted the steel trunk on his head, and moved down the platform. Lady Lal picked up her brass tiffin carrier and ambled along behind him. On the way she stopped by a hawker’s stall to replenish her silver betel leaf case, and then joined the coolie. She sat down on her steel trunk (which the coolie had put down) and started talking to him.

কুলিটি একটি বালিশ তৈরি করার জন্য তার পাগড়িটি চ্যাপ্টা করল, তার মাথায় স্টীলের ট্রাঙ্কটি তুলে নিল এবং প্ল্যাটফর্ম ধরে হাঁটতে লাগল। লালের স্ত্রী তার পিতলের টিফিন কৌটোটি তুলে নিয়ে তার পিছন পিছন হাঁটলেন। পথে তিনি তার রূপালী পানের ডিব্বাটি পূরণ করার জন্য একটি হকারের স্টলে থামলেন এবং তারপর কুলির সাথে যোগ দিলেন। তিনি তার স্টিলের ট্রাঙ্কে বসলেন (যেটি কুলি রেখেছিল) এবং তার সাথে কথা বলতে শুরু করলেন।

“Are the trains very crowded on these lines?”

“এই লাইনে ট্রেনগুলোতে কি খুব ভিড়?”

“These days all trains are crowded, but you’ll find room in the zenana.

“আজকাল সব ট্রেনেই ভিড়, কিন্তু আপনি মহিলা কামরায় জায়গা পাবেন।”

“Then I might as well get over the bother of eating.”

“তাহলে আমিও খাওয়ার ঝামেলা কাটিয়ে উঠতে পারি।”

Lady Lal opened the brass carrier and took out a bundle of cramped chapattis and some mango pickle. While she ate, the coolie sat opposite her on his haunches, drawing lines in the gravel with his finger.

লেডি লাল পিতলের কৌটোটি খুললেন এবং এক বান্ডিল দোমড়ানো – মোচড়ানো  চাপাতি আর কিছু আমের আচার বের করলেন। যখন তিনি খাচ্ছিলেন, তখন কুলিটি তার বিপরীতে নিতম্বে ভর করে বসে আঙুল দিয়ে নুড়িতে দাগ কাটছিল।

“Are you travelling alone, sister ?”

“আপনি কি একা ভ্রমণ করছেন, দিদি?”

“No, I am with my master, brother. He is in the
waiting room. He travels first class. He is a vizier and a barrister, and meets so many officers and Englishmen in the trains and I am only a native woman. I can’t understand English and don’t know their ways, so I keep to my zenana inter-class.”

“না ভাই, আমি আমার স্বামীর সাথে আছি। তিনি ওয়েটিং রুমে আছেন। তিনি প্রথম শ্রেণীতে ভ্রমণ করেন। তিনি একজন সরকারি আমলা এবং একজন ব্যারিস্টার, এবং ট্রেনে অনেক অফিসার এবং ইংরেজদের সাথে দেখা করেন আর আমি কেবল একজন দেশীয় মহিলা। আমি ইংরেজি বুঝতে পারি না এবং তাদের আদব- কায়দা জানি না, তাই আমি আমার মহিলা কামরার ইন্টার- ক্লাসে থাকি।”

Lachmi chatted away merrily. She was fond of a little gossip and had no one to talk to at home. Her husband never had any time to spare for her. She lived in the upper storey of the house and he on the ground floor. He did not like her poor illiterate relatives hanging around his bungalow, so they never came. He came up to her once in a while at night and stayed for a few minutes. He just ordered her about in anglicised Hindustani, and she obeyed passively. These nocturnal visits had, however, borne no fruit.

লছমী আনন্দে আড্ডা দিলেন। তিনি একটু গল্প করতে পছন্দ করতেন এবং বাড়িতে কথা বলার মতো কেউ ছিল না। তার স্বামীর তার জন্য কোন সময় অবকাশ ছিল না। তিনি বাড়ির উপরের তলায় থাকতেন আর সে (তার স্বামী) থাকতেন নিচ তলায়। তার বাংলোর চারপাশে তার দরিদ্র অশিক্ষিত আত্মীয়দের ঘুরঘুর করা তিনি পছন্দ করতেন না, তাই তারা কখনও আসতেন না। তিনি রাতে একবার তার কাছে আসেন এবং কয়েক মিনিটের জন্য থাকেন। তিনি তাকে শুধু ইংরেজি হিন্দুস্তানি ভাষায় নির্দেশ দিয়েছিলেন এবং তিনি নির্বিকার চিত্তে মেনে চলেন। যাই হোক, এই নিশাচর পরিদর্শন কোন ফল বহন করেনি।

The signal came down and the clanging of the bell announced the approaching train. Lady Lal hurriedly finished off her meal. She got up, still licking the stone of the pickled mango. She emitted a long, loud belch as she went to the public tap to rinse her mouth and wash her hands. After washing she dried her mouth and hands with the loose end of her sari, and walked back to her steel trunk, belching and thanking the Gods for the favour of a filling meal.

সিগন্যাল পড়ে গেল আর ঘন্টা ধ্বনি ট্রেনের আসার ঘোষণা জানিয়ে দিল। লেডি লাল তড়িঘড়ি করে খাওয়া শেষ করলেন। তিনি উঠে দাঁড়ালেন, এখনো আমের আচারের আটিটি চুষছেন। তিনি সশব্দে একটি দীর্ঘ ঢেকুর তুললেন যখন তিনি মুখ এবং হাত ধোয়ার জন্য একটি পাবলিক ট্যাপের কাছে যান। ধোয়ার পরে তিনি তার শাড়ির আলগা প্রান্ত দিয়ে তার মুখ এবং হাত মুছলেন, এবং তার স্টিলের ট্রাঙ্কের কাছে ফিরে গেলেন, এবং পরিতৃপ্তির ঢেকুর তুলে একটি ভরপেট খাবারের জন্য ঈশ্বরকে ধন্যবাদ জানালেন।

The train steamed in. Lachmi found herself facing an almost empty inter-class zenana compartment next to the guard’s van, at the tail end of the train. The rest of the train was packed. She heaved her squat, bulky frame through the door and found a seat by the window. She produced a two-anna bit from a knot in her sari and dismissed the coolie. She
then opened her betel case and made herself two betel leaves charged with a red and white paste, minced betel nuts and cardamoms. These she thrust into her mouth till her cheeks bulged on both sides. Then she rested her chin on her hands and sat gazing idly at the jostling crowd on the platform.

ধোঁয়া ছাড়তে ছাড়তে ট্রেনটি ভিতরে ঢুকে গেল। লছমী নিজেকে ট্রেনের লেজের শেষে গার্ডের ভ্যানের পাশে প্রায় খালি আন্তঃশ্রেণীর মহিলা কামরা বগির মুখোমুখি দেখতে পেলেন। ট্রেনের বাকি অংশগুলি ভর্তি ছিল। তিনি দরজা দিয়ে তার বেঁটেখাটো মোটাসোটা শরীরটা তুলে জানালার পাশে একটি আসন খুঁজে পেলেন। তিনি তার শাড়ির একটি গিঁট থেকে একটি দু’-আনা বের করে কুলিকে বিদায় করলেন। তারপরে তিনি তার সুপারি কেসটি খুললেন এবং লাল এবং সাদা পেস্ট, কিমা করা সুপারি এবং এলাচ দিয়ে আচাসে দুটি পান তৈরি করলেন। এইগুলি তিনি তার মুখের মধ্যে ঠুসে দিতে লাগলেন যতক্ষণ না তার গাল দুপাশে ফুলে যায়। তারপর তিনি তার হাতদুটি চিবুকে রেখে প্ল্যাটফর্মে ধাক্কাধাক্কিরত জনতার দিকে অলসভাবে তাকিয়ে বসে রইলেন।

The arrival of the train did not disturb Sir Mohan Lal’s sang-froid. He continued to sip his scotch and ordered the bearer to tell him when he had moved the luggage to a first class compartment. Excitement, bustle and hurry were exhibitions of bad breeding, and Sir Mohan was eminently well-bred. He wanted everything tickety-boo’ and orderly. In his five years abroad, Sir Mohan had acquired the manners and attitudes of the upper classes. He rarely spoke Hindustani. When he did, it was like an Englishman’s -only the very necessary words and properly anglicised. But he fancied his English, finished and refined at no less a place than the University of Oxford. He was fond of conversation, and like a cultured Englishman, he could talk on almost any subject books, politics, people. How frequently had he heard English people say that he spoke like an Englishman!

ট্রেনের আগমন স্যার মোহন লালের অবিচলিত অবস্থাকে বিরক্ত করল না। তিনি তার স্কচে চুমুক দিতে থাকলেন এবং বেয়ারাকে নির্দেশ দিলেন যে সে যখন প্রথম শ্রেণীর বগিতে মালপত্র সরিয়ে নিবে তখন তা তাকে জানাতে। উত্তেজনা, হৈচৈ এবং তাড়াহুড়ো হল শিষ্টাচারহীনতার পরিচয় এবং স্যার মোহনলাল  ছিলেন আচার আচরণে লক্ষ্যণীয় ভাবে সুভদ্র। তিনি সবকিছু ‘টিকিট-বুক অনুযায়ী ছিমছাম এবং সুশৃঙ্খল করতে চেয়েছিলেন। স্যার মোহন বিদেশের পাঁচ বছরে উচ্চবিত্তদের আচার-আচরণ ও মনোভাব সুন্দরভাবে রপ্ত করেছিলেন। তিনি খুব কমই হিন্দুস্তানি বলতেন। আর যখন তিনি বলতেন, তখন এটি একজন ইংরেজের মতো -শুধুমাত্র খুব প্রয়োজনীয় শব্দগুলি এবং সঠিকভাবে ইংরেজি কায়দায়। কিন্তু তিনি ভাবতেন তার ইংরেজি এতটাই মার্জিত, সম্পূর্ণ এবং পরিশীলিত যে  অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রচলিত ইংরেজির তুলনায় কোন অংশেই কম নয়। তিনি কথাবার্তা পছন্দ করতেন, এবং একজন সংস্কৃতিবান ইংরেজের মতো তিনি প্রায় যে কোনও বিষয়ে কথা বলতে পারতেন – বই, রাজনীতি, মানুষ। কত বার তিনি ইংরেজদের বলতে শুনেছেন যে তিনি একজন ইংরেজের মতো কথা বলেছেন!

Sir Mohan wondered if he would be travelling alone. It was a Cantonment and some English officers might be on the train. His heart warmed at the prospect of an impressive conversation. He never showed any sign of eagerness to talk to the English as most Indians did. Nor was he loud, aggressive and opinionated like them. He went about his
business with an expressionless matter-of-factness. He would retire to his corner by the window and get out a copy of The Times.

স্যার মোহন ভাবলেন তাকে কি একা ভ্রমণ করতে হবে। এটি একটি সেনানিবাস ছিল এবং হয়তো কিছু ইংরেজ অফিসার ট্রেনে থাকতে পারে। একটি চিত্তাকর্ষক কথোপকথনের প্রত্যাশা তার হৃদয়কে চাঙ্গা করে তুলল। তিনি কখনই ইংরেজদের সাথে কথা বলার আগ্রহ দেখাননা যেমনটি বেশিরভাগ ভারতীয়ই দেখাতেন। কিংবা তিনি তাদের মত উচ্চস্বরে, আক্রমনাত্মক, একগুঁয়ের মতো মতামত জাহির করতেন না। তিনি ভাবলেশহীন ভাবে নিজের কাজে ব্যাপ্ত থাকতেন। তিনি জানালার পাশে কোণের দিকের আসনে বসবেন এবং টাইমস পত্রিকার একটি কপি বের করবেন।

He would fold it in a way in which the name of the paper was visible to others while he did the crossword puzzle. The Times always attracted attention. Someone would like to borrow it when he put it aside with a gesture signifying ‘I’ve finished with it. Perhaps someone would recognize his Balliol tie which he always wore while travelling. That would open a vista leading to a fairy-land of Oxford colleges, masters, dons, tutors, boat-races and rugger matches. If both The Times and the tie failed, Sir Mohan would ‘Koi Hai’ his bearer to get the Scotch out.

তিনি এটিকে এমনভাবে ভাঁজ করতেন যাতে কাগজের নাম অন্যদের কাছে দৃশ্যমান হয় যখন তিনি শব্দধাঁধাটি সমাধান করবেন। টাইমস পত্রিকা সবসময় নজর কাড়ত। কেউ এটিকে ধার করতে চাইবে যখন সে এটিকে একপাশে রাখবে যার মানে দাঁড়ায় ‘আমি এটি শেষ করেছি’। সম্ভবত কেউ তার ব্যালিওল টাই চিনতে পারে যা তিনি ভ্রমণের সময় সর্বদাই পরতেন। এভাবেই খুলে যাবে কথোপকথনের এক দিগন্ত যেখান থেকে তিনি চলে যাবেন অক্সফোর্ড কলেজ, অধ্যাপক , ডন, টিউটর, নৌকা-দৌড় এবং রাগবি ম্যাচের এক রুপকথার দেশে। যদি টাইমস এবং টাই উভয়ই ব্যর্থ হয়, স্যার মোহন স্কচকে বের করার জন্য তার বেয়ারাকে ‘কোই হ্যায়’ বলে  ডাক দিতেন।

Whiskey never failed with Englishmen. Then followed Sir Mohan’s handsome gold cigarette case filled with English cigarettes. English cigarettes in India ? How on earth did he get them ? Sure he didn’t mind ? And Sir Mohan’s understanding smile of course he didn’t. But could he use the Englishman as a medium to commune with his dear old England ?

হুইস্কি ইংরেজদের ক্ষেত্রে কখনও ব্যর্থ হয় নি। তারপর বেরিয়ে আসবে স্যার মোহনের সুদর্শন সোনার সিগারেটের কেসটি  যা ইংল্যান্ডের সিগারেটে ভরা। ভারতে ইংল্যান্ডের সিগারেট? কিভাবে তিনি সেগুলি পেয়েছেন? নিশ্চয় তিনি কিছু মনে করবেন না? আর স্যার মোহনের বোধগম্য হাসি-অবশ্যই  কিছু মনে করেননি। কিন্তু তিনি কি তার প্রিয় পুরাতন ইংল্যান্ডের সাথে যোগাযোগের জন্য ইংরেজকে একটি মাধ্যম হিসাবে ব্যবহার করতে পারবেন?

Those five years of grey bags and gowns, of sports blazers and mixed doubles, of dinners at the inns of Court and nights with Piccadilly prostitutes. Five years of a crowded glorious life. Worth far more than the forty-five in India with his dirty, vulgar countrymen, with sordid details of the road to success, of nocturnal visits to the upper storey and all-too-brief sexual acts with obese old Lachmi, smelling of sweat and raw onions.

সেই পাঁচ বছরের ধূসর ব্যাগ এবং গাউন, স্পোর্টস ব্লেজার এবং মিক্সড ডাবলস, কোর্টের ইনস-এ ডিনার খাওয়া এবং পিকাডিলি পতিতাদের সাথে রাত কাটানো।  জমজমাট গৌরবময় জীবনের পাঁচ বছর। তার নোংরা, অশ্লীল দেশবাসীর সাথে ভারতে পঁয়তাল্লিশ বছর, সাফল্যের রাস্তার নির্মম বিবরণ, উপরের তলায় নিশাচর পরিদর্শন এবং স্থূল বৃদ্ধ লছমির সাথে খুব সংক্ষিপ্ত যৌন ক্রিয়াকলাপ, ঘামের এবং কাঁচা পেঁয়াজের গন্ধ- এসবের তুলনায় অনেক বেশি দামি।

Sir Mohan’s thoughts were disturbed by the bearer announcing the installation of the Sahib’s luggage in a first class coupe next to the engine. Sir Mohan walked to his coupe with a studied gait. He was dismayed. The compartment was empty. With a sigh he sat down in a corner and opened the copy of The
Times, he had read several times before.

ইঞ্জিনের পাশের প্রথম শ্রেণির কামরায় সাহেবের মালপত্র স্থাপন করার কথা বেয়ারা ঘোষণা করলে স্যার মোহননের চিন্তাগুলি বিঘ্নিত হল। স্যার মোহন একটি অনুশীলিত চলনভঙ্গিতে তার কামরার দিকে চলে গেলেন। তিনি হতাশ হয়ে পড়েছিলেন। কামরাটি খালি ছিল। দীর্ঘশ্বাস ফেলে তিনি এক কোণে বসে পড়লেন এবং টাইমস পত্রিকাটি খুললেন যা তিনি এর আগে বেশ কয়েকবার পড়ে ফেলেছিলেন।

Sir Mohan looked out of the window down the
crowded platform. His face lit up as he saw two
English soldiers trudging along, looking in all the compartments for room. They had their haversacks slung behind their backs and walked unsteadily. Sir Mohan decided to welcome them, even though they were entitled to travel only second class. He would speak to the guard. One of the soldiers came up to the last compartment and stuck his face through the window. He surveyed the compartment and noticed the unoccupied berth.

স্যার মোহন জানালার বাইরে জনাকীর্ণ প্লাটফর্মের দিকে
তাকালেন। তাঁর মুখটি জ্বলজ্বল করে উঠল যখন তিনি দেখলেন দু’জন ইংরেজ সৈন্যকে ক্লান্তিভরে হাঁটতে হাঁটতে সব কামরায় জায়গা খুঁজছে। তাদের পিঠে পেছনের দিকে ছিল বড় ব্যাগ এবং অস্থিরভাবে হাঁটছিলেন। স্যার মোহন তাদের স্বাগত জানানোর সিদ্ধান্ত নিলেন, যদিও তারা কেবল দ্বিতীয় শ্রেণির ভ্রমণের অধিকারী ছিলেন। তিনি গার্ডের সাথে কথা বলবেন। সৈন্যদের মধ্যে একজন শেষ বগিতে আসলেন এবং জানালা দিয়ে তাঁর মুখ লাগিয়ে দৃষ্টি নিক্ষেপ করলেন। তিনি বগিটি জরিপ করলেন এবং ফাঁকা বার্থটি লক্ষ্য করলেন।

“Ere, Bill,” he shouted, “one’ ere.”

“এখানে, বিল,” তিনি চেঁচিয়ে বললেন, “একটা এখানে।”

His companion came up, also looked in, and looked at Sir Mohan.

তাঁর সঙ্গী উঠে আসলেন, এছাড়াও ভিতরে তাকালেন, এবং স্যার মোহনর দিকে তাকালেন।

“Get the nigger out,” he muttered to his companion.

“নিগ্রো ব্যক্তিটিকে বের করে দাও,” তিনি তার সঙ্গীর সাথে বিড়বিড় করে বললেন।

They opened the door, and turned to the half-
smiling, half-protesting Sir Mohan.

তারা দরজাটি খুললেন, এবং অর্ধ-হাসি, অর্ধ-প্রতিবাদী স্যার মোহনের দিকে ঘুরলেন।

“Reserved!” yelled Bill.

“সংরক্ষিত!” চিৎকার করে উঠল বিল।

“Janta Reserved. Army Fauj,” exclaimed Jim,
pointing to his khaki shirt.

“জানি-সংরক্ষিত। সৈন্যবাহিনী-ফৌজ,” জিম তার খাকি শার্টের দিকে ইশারা করল।

“Ek Dum jao — get out!”

“একেবারে যাও- বেরিয়ে যাও!”

“I say, I say, surely,” protested Sir Mohan in his
Oxford accent. The soldiers paused. It almost
sounded like English, but they knew better than to trust their inebriated ears. The engine whistled and the guard waved his green flag.

“আমি বলছি, আমি অবশ্যই বলছি,” স্যার মোহন তার অক্সফোর্ড উচ্চারণে প্রতিবাদ করে উঠলেন। সৈন্যরা থেমে গেলেন। এটি প্রায় ইংরেজদের মতো শোনাচ্ছে, তবে তারা তাদের মদ্দপ কানের উপর ভরসা করা সমীচীন মনে করলেন না। ইঞ্জিনটি বাঁশি বাজাল এবং গার্ড তার সবুজ পতাকাটি ঢেউখেলিয়ে নাড়লেন।

They picked up Sir Mohan’s suitcase and flung it on to the platform. Then followed his thermos flask, briefcase, bedding and The Times. Sir Mohan was livid with rage.

তারা স্যার মোহনের স্যুটকেস তুললেন এবং প্ল্যাটফর্মের দিকে ছুঁড়ে ফেলে দিলেন। তারপরে তার থার্মাস ফ্লাস্ক, ব্রিফকেস, বিছানা এবং দ্য টাইমস সেই একই ভাবে বের করে দিলেন। স্যার মোহন খেপে লাল হয়ে গেলেন।

“Preposterous, preposterous,” he shouted, hoarse with anger. “I’ll have you arrested – guard, guard!”

“অযৌক্তিক, অর্থহীন,” তিনি ক্রোধে কর্কশ কণ্ঠস্বরে চেঁচিয়ে বললেন,। “আমি আপনাদেরকে গ্রেফতার করাবো- প্রহরী, প্রহরী!”

Bill and Jim paused again. It did sound like English, but it was too much of the King’s for them.

বিল এবং জিম আবার থেমে গেল। এটি ইংরেজদের মতো শোনাচ্ছে, তবে এটি (বিশুদ্ধ ইংরেজি) তাদের সহ্য করার পক্ষে বড্ড বাড়াবাড়ি মনে হল।

“Keep yer ruddy mouth shut!” And Jim struck Sir Mohan flat on the face.

“তোমার ওই অসভ্য মুখ বন্ধ রাখো!” এবং জিম স্যার মোহন এর মুখে শপাটে আঘাত করল।

The engine gave another short whistle and the train began to move. The soldiers caught Sir Mohan by the arms and flung him out of the train. He reeled backwards, tripped on his bedding, and landed on the suitcase.

ইঞ্জিনটি আরেকটি ছোটো হুইসেল দিল এবং ট্রেনটি চলতে শুরু করল। সৈন্যরা স্যার মোহনকে হাত ধরলেন এবং ট্রেন থেকে বাইরে ছুঁড়ে ফেলে দিলেন। তিনি পিছন দিকে গড়িয়ে গেলেন, তার বিছানার উপরে হোঁচট খেলেন, এবং স্যুটকেসের উপরে গিয়ে পড়লেন।

“Toodle-oo!”

“বিদায়!”

Sir Mohan’s feet were glued to the earth and he lost his speech. He stared at the lighted windows of the train going past him in quickening tempo. The tail-end of the train appeared with a red light and the guard standing in the open doorway with the flags in his hands. In the inter-class zenana compartment was Lachmi, fair and fat, on whose nose the diamond nose-ring glistened against the station lights. Her mouth was bloated with betel saliva which she had been storing up to spit as soon as the train had cleared the station. As the train sped past the
lighted part of the platform, Lady Lal spat and sent a jet of red dribble flying across like a dart.

স্যার মোহনের পাগুলি সেটে রইল মাটিতে এবং তিনি কথা বলার ক্ষমতা হারিয়ে ফেললেন। দ্রুত গতিতে তাকে পাশ কাটিয়ে যাওয়া ট্রেনের আলোকিত জানলার দিকে তাকিয়ে রইলেন। ট্রেনের শেষ অংশ এসে পরল আর তার সঙ্গে লাল আলো এবং খোলা দরজার সামনে হাতে পতাক সমেত দাঁড়িয়ে থাকা গার্ড। আন্তশ্রেণীর মহিলা কামরায় ছিলেন মোটাসোটা ফর্সা লছমি যার হীরে-বসানো নাকছাবিটা স্টেশনের আলোর ঝিলিক দিয়ে উঠলো। ট্রেনটা স্টেশন অতিক্রম করলেই ফেলবেন বলে জমিয়ে রাখা পানের পিকে তার মুখ ফুলে উঠেছিল। যখন ট্রেন স্টেশনের আলোকিত অংশটুকু পার হয়ে এলো অমনি শ্রীমতি লাল থুথু ফেললেন এবং তীরের মত লাল চিহ্নের ফিনকি উড়িয়ে দিলেন।


Read More👇
Upon the Westminster Bridge- William Wordsworth
Meeting at Night- Robert Browning
The Sick Rose- William Blake
Brotherhood – Octavio Paz
Daybreak- H.W. Longfellow
Leela’s Friend – R.K. Narayan
Karma- Khuswant Singh
Alias Jimmy Valentine – O. Henry
Nobel Lecture- Mother Teresa
The Place of Art in Education – Nandalal Bose

Spread the love